মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০
মঙ্গলবার, ১৭ই চৈত্র ১৪২৬
সর্বশেষ
 
 
Unpleasant activities when whole Bangladesh is observing Mujib Borsho !
প্রকাশ: ১০:৪২ pm ২০-০৩-২০২০ হালনাগাদ: ০৩:৪১ pm ২২-০৩-২০২০
 
eibela desk
 
 
 
 


The liberation war of Bangladesh can be traced back to 1948 when Muhammad Ali Jinnah declared in Dhaka that Urdu and Urdu shall be the official language for the whole of Pakistan (that is, West Pakistan and East Pakistan) resulting in strong resentment in then East Pakistan. The then East Pakistan resented since Bangla was the mother-tongue of  majority of the people of the East Pakistan. Vehement protests were launched in various parts of then East Pakistan. Several students and intellectuals of then East Pakistan lost their lives on February 21, 1952 for taking part in the ‘language movement’ and resenting the decision of Muhammad Ali Jinnah to impose Urdu on Bengali-speaking people. With ‘language movement’ gaining momentum, religion took a back-seat in then East Pakistan. This clearly shows religion was never an important factor in then East Pakistan unlike in West Pakistan (Pakistan) which always tries to see everything through the prism of religion and divides people on religious lines. The ‘Two nation theory’ of Muhammad Ali Jinnah is a case in point. 
February 21 has subsequently been declared as International Mother Language day by UNESCO. So undoubtedly, language paved the way for liberation of Bangladesh. East Pakistanis deeply identified themselves  as Bengalis and ‘Bengaliness’ embodied their culture. East Pakistanis were ahead of West Pakistanis both culturally and educationally.  Dhaka University (then Dacca University) used to be a prominent seat of learning in the whole of South Asia during that time-period.  

The above events are  important in the sense that a  certain diplomatic mission in Dhaka is scheduled to celebrate ‘Pakistan Day’ on March 23 in utter disregard to the sentiments of 160 million Bangladeshi. They are trying to project a narrative that their day (March 23) is important since Muslims of that time in 1940 resolved to gain independence from dominion of Hindu majority. They, however, failed to note that playing a religious card is not going to pay them any dividends as Bangladesh’s foundation is laid on the four principles of secularism, nationalism, socialism and democracy. Thisact of this particular mission is aimed at fomenting communal disharmony in Bangladesh, and creating a divide with its neighbour whose unwavering support and gratitude during the War of Liberation can not be paid back.Short of saying sorry for their genocide intent, they are giving more importance to March 23 to suit their own agenda, that also during Mujib Borsho. 

Bangladesh was born out of a struggle which is perhaps unique in the history of this sub-continent. A deeper look into this struggle will expose Pakistan of its hypocrisy and its evil designs. The first attempt to divide Bengal on religious lines was made by the Britishers in 1905 through the creation of Western Bengal and Eastern Bengal. While Hindus were in majority in Western Bengal, Muslims formed the bulk of the population in Eastern Bengal. But the division on religious line could not be sustained and had to be annulled in 1911 in the face of a strong resistance. Muhammad Ali Jinnah clamoured for division of the- then undivided India once again on religious line when Britishers were about to hand over power to an Independent India. This theory of Jinnah is widely known as the ‘’Two-nation theory’’ in the history of this sub-continent. This time, Jinnah was successful. Two independent nations namely India and Pakistan were born on August 15, 1947 following a partition of the whole of India with India being a Hindu-majority country, and Pakistan a Muslim-majority country. Pakistan had two parts namely West Pakistan and East Pakistan. West Pakistan was geographically separated from East Pakistan by about two thousands of kilometres of Indian territory.  The separation was not restricted to the huge distance between the two parts only, but to language, and culture as well. In fact, the last two were the most powerful factors that ushered in liberation of the-then East Pakistan (now Bangladesh) from the clutches of Pakistan.  

According to a Report (Report of the Advisory Panels for the Fourth Five Year Plan 1970-75, Vol.I) published by the Planning Commission of Pakistan, the totaloutlay for Eastern Pakistan had always been behind that of the Western Pakistan. In 1950/51-1954/55, 46 percent of the total spending was made on the Eastern part, with the rest channelled towards the western part.  The figure further declined to 32 percent for the eastern part in 1955/56-1959/60. An average of just 34 percent was spent on Eastern Pakistanduring 1950/51-1969/70 despite  the area (then Eastern Pakistan)  being more populous in comparison to Western Pakistan . Between 1948 and 1960, East Pakistan’s export earnings had been 70 percent while it received a meagre 25 percent of import earning.  In 1948, East Pakistan had 11 textile mills while West had 9. In 1971, the number of textile mills in the West had grown to 150 while that in the East the figure had only gone up to 26. A transfer of 2.6 billion dollars (in 1971 exchange rates) worth resources was also done over time from East Pakistan to West Pakistan. The above statistics clearly point out that Pakistan (then West Pakistan) resorted to economic drain and exploitation of East Pakistan, a factor which paved  the way for liberation of the-then East Pakistan. This is another example which exposes Pakistan of its hypocrisy of Islamic brotherhood. 

The ‘Pakistan Day’ that is observed on March 23 every year is yet another example of its hypocrisy to hoodwink Muslim people since ‘Operation Searchlight’ was launched by then Western Pakistan on its Eastern part, which was also a Muslim-majority state, on the intervening night of March 25-26, 1971. West Pakistani soldiers came out of the cantonment at 11.30 pm, and resorted to genocide of unarmed Bengalis in the Farmgate area, launched simultaneous attacks on Pilkhana and Razarbagh police lines, arrested Sk Mujibur Rahmanat 1.15 am from his residence. Independence of Bangladesh was, however, declared by Sk Mujibur Rahman a few minutes before his arrest.  At dead of night, they launched operation at the teachers’ residential quarters of Dhaka university and killed a huge number of students and teachers.

So, summing up, one can easily see that factors like language, culture, economic exploitation, and dominance of then Western Pakistan over the Eastern Pakistan (now Bangladesh) were responsible behind the liberation movement of Bangladesh, and not religion. The ‘Mujib Borsho’ which is being observed from March 17, 2020-2021 will certainly defeat the evil designs of Pakistan in flaring up communal passion in this otherwise peaceful country, and the entire sub-continent as a whole.
Celebrating Pakistan Day on March 23 is clearly a mischievous move by this diplomatic mission. They have forgotten the wounds inflicted by the savage Pak army in the night of March 25-26 on innocent civilians, when  a genocide was committed with brutal force in collaboration with razakars, al-Badr and al-Shams. Paying scanty regards to the sentiments of 160 million Bangladeshis, who are busy celebrating the solemn and auspicious occasion of “Mujib Borsho”, this quarter is  bent upon carrying forward the agenda of their government. Such actions  are deplorable and at best aimed to suit their hidden agenda. 

মুজিববর্ষে অনাকাঙ্ক্ষিত কার্যক্রম, ২৩ মার্চ পালন করতে চায় পাকিস্তান তার দিবস!

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কথা আসলে সেই ১৯৪৮ সালে ফিরে যেতে হবে, যখন ঢাকায় মোহাম্মদত আলী জিন্নাহ ঘোষণা করেন যে উর্দু, উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা। এতে পূর্ব পাকিস্তানে মারাত্মক অসন্তোষ দেখা দেয়। 

পূর্ব পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা ঘোষণার দাবিতে অঞ্চলটিতে ক্ষোভ বাড়তে থাকে, বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। ভাষা আন্দোলনে অংশ নেয়ায় ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি পূর্ব পাকিস্তানের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী ও বুদ্ধিজীবীকে জীবন দিতে হয়েছে।

বাংলাভাষীদের ওপর উর্দু চাপিয়ে দেন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, সেই জেরে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে পূর্ব পাকিস্তান। যখন ভাষা আন্দোলন নতুন গতিশক্তি পায়, পূর্ব পাকিস্তানে ধর্ম তখন পেছনের আসনে চলে যায়, গুরুত্ব হারিয়ে ফেলে। 

এ অঞ্চলে ধর্ম কখনোই গুরুত্বপূর্ণ অনুঘটক ছিল না– এতে তা আরও পরিষ্কার হয়ে ওঠে। পশ্চিম পাকিস্তানের (বর্তমান পাকিস্তান) সঙ্গে তুলনা করলে যা সম্পূর্ণ আলাদা, সেখানে সবকিছু ধর্মের মাপকাঠিতে দেখা হয় এবং মানুষও বিভিন্ন ধর্মীয় ধরা-উপধারায় বিভক্ত। মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দ্বিজাতি তত্ত্ব যার একটি উদহারণ।

পরবর্তীকালে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে ইউনেস্কো। কাজেই নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, বাংলাদেশের স্বাধীনতার পথ তৈরি করে দিয়েছিল ভাষা।

পূর্ব পাকিস্তানিরা হৃদয় থেকেই নিজেদের বাঙালি বলে পরিচয় দিয়ে আসছে। তাদের সংস্কৃতিতেও বাঙালিয়ানা প্রতিমূর্ত হয়ে ওঠে। শিক্ষা ও সাংস্কৃতিকভাবে পশ্চিম পাকিস্তানে চেয়ে পূর্ব পাকিস্তানের লোকজন এগিয়ে ছিলেন। সেই সময় পুরো দক্ষিণ এশিয়ায় বিদ্যাপীঠ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ আসন দখল করে ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

উপরের ঘটনাগুলো এ কারণেই গুরুত্বপূর্ণ যে ঢাকার কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মিশন ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবস উদযাপন করতে যাচ্ছে। যেটা এ দেশের ১৬ কোটি মানুষের চেতনা ও মনোভাবের প্রতি সম্পূর্ণ অসম্মানজনক।

তারা দেখাতে চাচ্ছে যে, সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের আধিপত্য থেকে ১৯৪০ সালের দিকে মুসলমান স্বাধীনতা অর্জনে সক্ষম হন, যে কারণে তাদের এই দিবস ( মার্চ ২৩) গুরুত্বপূর্ণ। যাই হোক, তারা এ বিষয়টি উল্লেখ করতে ভুলে গেছে যে গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ ও ধর্মনিরপেক্ষ নীতির ওপর যে দেশের ভিত্তি গড়ে উঠেছে, সেখানে ধর্মীয় কার্ড খেলে তারা কোনো ফল পাবে না।

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সংঘাত জাগিয়ে তুলতে ও প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে বিভাজন তৈরির বিশেষ মিশন থেকেই তারা এটা করছে। অথচ মুক্তিযুদ্ধে সেই দেশের অবিচল সমর্থন ও কৃতজ্ঞতার ঋণ কখনো শোধ করা সম্ভব না।

গণহত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে দুঃখপ্রকাশ না করে তারা ২৩ মার্চের নিজস্ব এজেন্ডায় বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে, তাও এমন সময় যখন মুজিববর্ষ চলছে। বাংলাদেশ এমন এক লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে জন্ম নিয়েছে, উপমহাদেশের ইতিহাসে তা সম্ভবত অনন্য। সেই লড়াইয়ের গভীরে নজর দিলে পাকিস্তানের অসুভ পরিকল্পনা ও ভণ্ডামি বেরিয়ে আসবে।

পশ্চিমবঙ্গ ও পূর্ববাংলা সৃষ্টির মাধ্যমে ১০৫ সালে ধর্মের ভিত্তিতে বাংলাকে বিভিক্ত করতে চেয়েছিল ব্রিটিশরা। সেটা ছিল প্রথম কোনো উদ্যোগ। তখন পশ্চিমবঙ্গে হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ আর পূর্ববাংলায় মুসলমানরা। কিন্তু ধর্মীয় ধারার সেই বিভক্তি স্থায়ী হয়নি এবং প্রতিরোধের মুখে ১৯১১ সালে তা অকার্যকর হয়ে যায়।

ব্রিটিশরা যখন স্বাধীন ভারতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে যাচ্ছিল, তখনকার অবিভক্ত ভারতে আরেকবার ধর্মীয় ভিত্তিতে বিভাজন তৈরির চেষ্টা করেন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। যা উপমহাদেশের ইতিহাসে দ্বিজাতি তত্ত্ব নামে পরিচিত। কিন্তু এবার জিন্নাহ সফল হয়ে যান।

অবিভক্ত ভারত ভাগ হওয়ার মধ্য দিয়ে ১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তান নামে দুটি আলাদা স্বাধীন দেশের জন্ম হয়। যেখানে ভারত হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ আর পাকিস্তানের জনসংখ্যার মূল অংশ মুসলমানরা। পূর্ব পাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তান নামে দুটি অংশ হয় পাকিস্তানের। কিন্তু একটি অংশ থেকে আরেকটি দুই হাজার কিলোমিটার দূরে।

কেবল দুই অংশের ব্যাপক বিভাজনের মধ্যেই এই বিচ্ছিন্নতা সীমাবদ্ধ নয়; ভাষা ও সাংস্কৃতিকভাবেও অমিল ছিল। কার্যত পশ্চিম পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণ থেকে পূর্ব পাকিস্তানের মুক্তির জন্য পরের দুটির ভূমিকা ছিল সবচেয়ে বেশি।

পাকিস্তানের পরিকল্পনা কমিশনের প্রতিবেদন (১৯৭০ সালের চতুর্থ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার জন্য উপদেষ্টা প্যানেলের প্রতিবেদন) অনুসারে, সবসময়ই পূর্ব পাকিস্তানের সর্বমোট ব্যয় ছিল পশ্চিম পাকিস্তানের চেয়ে কম। ১৯৫০/৫১-১৯৫৪/৫৫ সালে, সর্বমোট ৪৬ শতাংশ খরচ ছিল পূর্বাংশের, আর বাকিটা পশ্চিমাংশে চলে যেত।

১৯৫৫/৫৬-১৯৫৯/৬০ সালে পূর্বাংশের ব্যয় আরও কমে ৩২ শতাংশ হয়ে যায়। পশ্চিম পাকিস্তানের চেয়ে পূর্ব পাকিস্তান জনবহুল হলেও সেখানে ১৯৫০/৫১-১৯৬৯/৭০ সালে গড়ে ৩৪ শতাংশ হারে খরচ হয়েছে। ১৯৪৮ এবং ১৯৬০ সালের মধ্যে পূর্ব পাকিস্তানের রফতানি আয় ছিল ৭০ শতাংশ, তখন তারা মাত্র ২৫ শতাংশ রফতানি আয় নিজেরা পেত।

১৯৪৮ সালে পূর্ব পাকিস্তানে ১১টি টেক্সাইল মিল ছিল, যখন পশ্চিম পাকিস্তানের ছিল ৯টি। কিন্তু ১৯৭১ সালে পশ্চিম পাকিস্তানের টেক্সাইল মিলের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ১৫০, আর পর্ব পাকিস্তানের ছিল মাত্র ২৬টি।

পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে দুই দশমিক ছয় বিলিয়ন ডলারের (১৯৭১ বিনিময় হার) সমপরিমাণ সম্পদ নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উপরের এই পরিসংখ্যান পরিষ্কারভাবে বলে দিচ্ছে, পূর্ব পাকিস্তানে অর্থনৈতিক শোষণ ও অর্থপাচারের আশ্রয় নিয়েছিল পাকিস্তান (তখনকার পশ্চিম পাকিস্তান)। আর এসব কারণেই পূর্ব পাকিস্তানকে স্বাধীনতার ডাক দিতে হয়েছে। এভাবেই ইসলামি ভ্রাতৃত্বের ভণ্ডামির আরেকটি দৃষ্টান্ত তৈরি করে পাকিস্তান।

প্রতিবছরের ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবস উদযাপিত হয়। পূর্ব পাকিস্তানে ১৯৭১ সালের ২৫-২৬ মার্চে অপারেশন সার্চলাইটের পর মুসলমান জনগণের সঙ্গে পশ্চিম পাকিস্তানের ধাপ্পাবাজির আরেকটি উদহারণ এটি। কারণ পূর্ব পাকিস্তানের জনসংখ্যার বড় অংশ মুসলমান।

রাত সাড়ে ১১টায় পশ্চিম পাকিস্তানের সেনারা ক্যান্টনমেন্টে আসে, ফার্মগেট এলাকায় নিরস্ত্র বাঙালির ওপর গণহত্যা চালায়। একই সময় তারা পিলখানা ও রাজারবাগ পুলিশ লাইনসেও হামলা চালায়। আর রাত সোয়া ১টায় শেখ মুজিবর রহমানকে তার বাসভবন থেকে আটক করা হয়। আটকের কয়েক মিনিট আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন শেখ মুজিবর রহমান। সেই অন্ধকার রাতে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আবাসিক কোয়ার্টারে তারা অভিযান চালায় এবং শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের হত্যা করে। সবশেষে যে কেউ সহজেই বুঝতে পারবেন যে পূর্ব পাকিস্তানে পশ্চিম পাকিস্তানের ভাষা, সংস্কৃতি, অর্থনৈতিক শোষণ ও আধিপত্যের কারণেই বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ধর্ম এখানে কোনো অনুঘটকের ভূমিকা রাখেনি। ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শুরু হওয়া মুজিববর্ষ ২০২১ সাল পর্যন্ত পালিত হবে। যা সাম্প্রদায়িক ঘৃণা উসকে দিতে পাকিস্তানের অশুভ পরিকল্পনাকে ব্যর্থ করে দেবে। কাজেই ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবস উদযাপন পরিষ্কারভাবে কূটনৈতিক মিশনগুলোর ন্যাক্কারজনক উদ্যোগ। ২৫-২৬ মার্চ রাতের অন্ধকারে নিরাপরাধ বেসামরিক লোকজনের ওপর হিংস্র পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হানা দেয়ার সেই ক্ষত তারা ভুলে গেছে। সেই রাতে নৃশংস রাজাকার, আল-বদর ও আল-শামসের সহায়তায় পাকিস্তানের সেনাবাহিনী গণহত্যা সংঘটিত করেছিল। যখন বছরজুড়ে নানা আয়োজনে মুজিববর্ষ পালিত হচ্ছে, তখন ১৬ কোটি বাংলাদেশির চেতনা ও মানসিকতার ওপর ন্যূনতম সম্মান না দেখিয়ে এই চক্র তাদের সরকারের এজেন্ডাকেই সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের পদক্ষেপ অবশ্যই নিন্দনীয় ও তাদের গোপন ষড়যন্ত্রের সঙ্গেই তা সামঞ্জস্যপূর্ণ।

নি এম/

 

 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

Editor: Sukriti Kr Mondal

E-mail: info.eibela@gmail.com Editor: sukritieibela@gmail.com

a concern of Eibela Ltd.

Request Mobile Site

Copyright © 2020 Eibela.Com
Developed by: coder71