eibela24.com
মঙ্গলবার, ২৪, নভেম্বর, ২০২০
 

 
‘লাভ জিহাদ’ রুখতে নতুন আইন আনছে গুজরাট সরকার
আপডেট: ১০:৩০ pm ২৫-০৯-২০২০
 
 


ভারতের গুজরাটে অপরাধ মূলক কার্যকলাপ নির্মূল করতে এবার এক অভিনব উদ্যোগ গ্রহণ করল বিজয় রুপানির সরকার। সম্প্রতি গুজরাটের বিধানসভায় সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ প্রতিরোধী বিল পাস করা হয়েছে। এবার রাজ্যপালের অনুমোদন মিললেই বিলটি আইনে পরিণত হবে এবং এই আইন অনুসারে সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ রুখতে পুলিশ প্রশাসনের হাতে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হবে। এই আইন অনুসারে, “লাভ জিহাদ” এর সঙ্গে যুক্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধেও কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এই বিলের মাধ্যমে প্রধানত গুজরাটের গুন্ডামি এবং অপরাধ জগতের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের নতুন সংজ্ঞা নিরূপণ করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রত্যেক শাখার সঙ্গে যুক্ত অপরাধীদের জন্য নতুন ভাবে শাস্তির বিধানও দেওয়া হয়েছে। বিল অনুসারে একাধিক কার্যকলাপের পাশাপাশি “লাভ জিহাদ”কেও শাস্তিযোগ্য অপরাধ তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, “লাভ জিহাদ” এর জন্য সমাজের মহিলারা নানাভাবে অপদার্থ এবং অত্যাচারের শিকার হন। এবার থেকে এই ধরনের কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত অপরাধীদের কড়া শাস্তি দেবে প্রশাসন।

উল্লেখ্য, এতদিন গুজরাটে গুন্ডামির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের পুলিশি হেফাজতে নিলে সর্বাধিক ১৫ দিন অব্দি লকআপে রাখা যেত। তবে নতুন আইন অনুসারে, পুলিশি হেফাজতের সময়সীমা ১৫ দিন থেকে বাড়িয়ে ৩০ দিন করা হয়েছে। পাশাপাশি, এই ধরনের অপরাধের ক্ষেত্রে আদালতে যে মামলা করা হয়, এতদিন ৬০দিনের মধ্যেই সেই মামলা সংক্রান্ত তদন্তের চার্জশিট পেশ করতে হতো পুলিশকে। তবে নতুন নিয়ম অনুসারে চার্জশিট পেশ করার সময়সীমাও বাড়ানো হয়েছে।

এবার থেকে চার্জশিট পেশ করতে পুলিশকে ৯০ দিন সময় দেওয়া হবে। পাশাপাশি, অপরাধীদের সাত থেকে দশ বছরের জেল হেফাজত হতে পারে। সাথে, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। শুধু তাই নয়, নতুন আইন অনুসারে বদলে যাবে গুন্ডার সংজ্ঞা। একক বা দলগতভাবে, যে বা যারা জনজীবনে শান্তি নষ্ট করবে এবং অপরাধমূলক কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত থাকবে তাদের প্রত্যেককে সমাজবিরোধী হিসেবে গণ্য করা হবে। তবে, এই আইনের সাথে “লাভ জিহাদ” যুক্ত হওয়ায় আপত্তি তুলেছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের দাবি, এর ফলে আইনের অপব্যবহারও হতে পারে।

নি এম/