বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৫ই পৌষ ১৪২৫
 
 
সবজির বাজারে স্বস্তি
প্রকাশ: ০৯:৪৪ am ১৭-০২-২০১৮ হালনাগাদ: ০৯:৪৪ am ১৭-০২-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ভরা শীতে দাম চড়া থাকলেও বর্তমানে সবজির দাম অনেক কমেছে, সবচেয়ে বেশি কমেছে টমেটোর দাম। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বিভিন্ন মানের টমেটো প্রতি কেজি ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। গাজর বিক্রি হয় ১৫ টাকায়।  এছাড়া শিম, ফুল কপি, বাধা কপিসহ শীতের অন্যান্য সবজিও বিক্রি হয় প্রতি কেজি ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকায়।

নভেম্বরে শীতকালীন টমেটো বাজার আসার পর প্রতি কেজি ১০০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তার আগেও বাজারে টমেটো থাকলেও দীর্ঘদিন তা কেজি প্রতি ১০০টাকার বেশিতে বিক্রি হয়।

দেশি ও আমদানি করা গাজর দীর্ঘদিন ধরেই কেজি প্রতি ১০০ টাকার কাছাকাছিতে বিক্রি হয়। গত বছর এপ্রিলে প্রথম দফা বন্যার পরেই সবজির দাম চড়তে থাকে, এরপর জুলাই-অগাস্টে দ্বিতীয় দফা বন্যায় উত্তরাঞ্চলের বিস্তৃত ফসলি জমি তলিয়ে যাওয়ায় সবজির দাম অনেক বাড়ে। প্রায় সব ধরনের সবজির দাম কেজিপ্রতি ৭০-৮০ টাকা হয়, যাতে অসহায় হয়ে পড়ার কথা জানিয়েছিলেন নিম্ন আয়ের মানুষরা।

কারওয়ান বাজারে সবজি বিক্রেতা নাসির উদ্দিন বলেন, “বাজারে শাক-সবজির সরবরাহ অনেক বেশি। গাজর, কপি, টমেটো এখন অনেক কম দামে কিনতে পারছি। তাই বিক্রিও করছি কম দামে।” সবজির দাম এতো কমে যাওয়া কৃষকের জন্য ক্ষতিকর বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কারওয়ান বাজারে নতুন করে দেখা গেছে বর্ষাকালীন সবজি চিচিঙ্গা। এর দামও প্রতি কেজি ৪০ টাকার মধ্যে।

অবশ্য মহাখালী, হাতিরপুলসহ রাজধানীর অন্যান্য বাজারে টমেটো, গাজার বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে। পেঁয়াজের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে আরও এক ধাপ কমেছে। কারওয়ান বাজারে দেশি পেঁয়াজ প্রতিকেজি ৪০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৪৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে মহাখালী কাচাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা প্রতিকেজি।

এই বাজারের মুদি দোকানি অহিদুজ্জামান জানান, গত এক সপ্তাহে পেঁয়াজের দাম দুই টাকা কমেই ৫০ টাকা হয়েছে। কারওয়ান বাজার থেকে এই বাজারে কিছু কিছু পণ্যের দামের পার্থক্য কেজিতে ৮ থেকে ১০ টাকা হয়।

সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে আরও পাঁচ টাকা বেড়েছে। কারওয়ান বাজারে ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৩৫ টাকা আর মহাখালী বাজারে ১৪০ টাকা। তবে ফার্মের মুরগির ডিম প্রতি ডজনে কমেছে পাঁচ টাকা। কারওয়ান বাজারে ফার্মের মুরগির ডিমের ডজন এখন ৭৫ টাকা, মহাখালীতে ৮০ টাকা।

অধিকাংশ মসলার দাম স্বাভাবিক থাকলেও গত ১৫ দিনে এলাচের দাম কেজিতে অন্তত ২০০ টাকা বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

কারওয়ান বাজারে হক মসলার পরিচালক আব্দুস সাত্তার জানান, দাম বাড়ার পর এলাচ বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ১৪০০ থেকে ১৫৫০ টাকায়। এছাড়া জিরা ৩৮০-৩৯০ টাকা, গোল মরিচ ৬০০ টাকা, লবঙ্গ ১০০০ টাকা,  কাঠ বাদাম ৬৮০ টাকা, আলু বোখারা ৪২০ টাকা, জৈয়ত্রী ১৫০০ টাকা, জায়ফল ৬০০ টাকা এবং কিসমিস ৩২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বিএম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71