বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৫ই পৌষ ১৪২৫
 
 
মা লক্ষ্মীর আলপনা তৈরি করেন যারা
প্রকাশ: ১০:০২ am ১৫-১০-২০১৬ হালনাগাদ: ১০:০২ am ১৫-১০-২০১৬
 
 
 


কলকাতা:: ‘এসো মা লক্ষ্মী বসো ঘরে’— এই বলেই ধনের দেবীকে সবাই আরাধনা করেন। সুখ, সমৃদ্ধিতে সংসার ভরিয়েও তোলেন। কিন্তু যাঁরা মা লক্ষ্মীকে ‘লক্ষ্মী’র রূপ দেন, তাঁদের অবস্থা যে তথৈবচ। লক্ষ্মী তাঁদের ঘরে ভর করেন না। বাজার মন্দা থাকলেও শুধু মাত্র পেটের তাগিদ ও শিল্পকলা বাঁচাতে এবারেও পট-লক্ষ্মী বা সরার লক্ষ্মী তৈরি করছেন শিল্পীরা। কিছু মানুষের চাহিদা অনুযায়ী সামান্য লাভের আশায় আজও পট-শিল্পীরা কোনওক্রমে জীবিকা নির্বাহ করছেন। উপায় না থাকায় বয়স্করা ওই কাজে নিযুক্ত থাকলেও তাদের বর্তমান প্রজন্ম এই পেশা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। অচিরেই এই শিল্প লুপ্ত হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন খোদ শিল্পীরাই। বালুরঘাট শহরের খিদিরপুর ডাকরা এনসি স্কুল পাড়া মাহিনগর-সহ কয়েকটি এলাকায় হাতে গোনা কয়েকঘর পটুয়া শিল্পীরা বসবাস করেন। 

দক্ষিণ দিনাজপুর-সহ উত্তরবঙ্গের কয়েকটি জেলা এবং বাঁকুড়া, বীরভূমের কিছু অঞ্চলে ছড়িয়ে রয়েছে পটের দেব-দেবীর আরাধনা। শিব, দুর্গা, গণেশের মতো পটের আকারে লক্ষ্মী দেবীকেও রূপ দেওয়া হয়। আগে লক্ষ্মীর ঘট, মূর্তি পূজা হলেও পরবর্তী সময়ে বাংলায় পটের লক্ষ্মীর পূজা শুরু হয় অধিকাংশ পরিবারে।

পটশিল্পীদের মতে কাঁচামালের দাম বৃদ্ধি পাওয়া সত্ত্বেও তাঁরা শুধুমাত্র শিল্পের নেশাতে এই কাজ করে চলেছেন সামান্য স্বচ্ছলতার আশায়। তাঁদের কথায়, পটের প্রতিমা বানাতে প্রয়োজনীয় মাটি এবং রঙ কিনতে হয়। তার পরে পটের প্রতিমা তৈরি করে বাজারজাত করতে এক একটির জন্য খরচ পরে ১০ থেকে ২০টাকা। অথচ তা বিক্রি হচ্ছে প্রতি পিস মাত্র ১৫-২০ টাকা দরে। দ্রব্যমূল্যের আকাশছোঁয়া বাজারে এই সামান্য লাভে তাঁদের পেট চলেনা। তবুও বাঙালি হিন্দুদের প্রথা রক্ষা করতে এবং নিজেদের পারিবারিক ঐতিহ্যকে রক্ষা করতে বয়স্ক পটশিল্পীরা এখনও এই শিল্পকে কোনও রকমে টিকিয়ে রেখেছেন। আসছে বছর তাঁদের অবস্থা কী হবে, তা মা লক্ষ্মীই জানেন!

দক্ষিণ দিনাজপুর-সহ উত্তরবঙ্গের কয়েকটি জেলা এবং বাঁকুড়া, বীরভূমের কিছু অঞ্চলে ছড়িয়ে রয়েছে পটের দেব-দেবীর আরাধনা। শিব, দুর্গা, গণেশের মতো পটের আকারে লক্ষ্মী দেবীকেও রূপ দেওয়া হয়। আগে লক্ষ্মীর ঘট, মূর্তি পূজা হলেও পরবর্তী সময়ে বাংলায় পটের লক্ষ্মীর পূজা শুরু হয় অধিকাংশ পরিবারে। আজও বংশানুক্রমে পট-লক্ষ্মীর পুজো করা হয় এই জেলাগুলিতে। চাহিদা অনুযায়ী মৃৎশিল্পীদের মধ্যে কিছু শিল্পী ভাগ হয়ে শুধুমাত্র পটের প্রতিমা গড়তে শুরু করেছিলেন। 

 

এইবেলাডটকম/প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71