সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭
সোমবার, ৪ঠা পৌষ ১৪২৪
 
 
লক্ষ্যমাত্রা ৬৪ হাজার মেট্রিক টন
বগুড়ায় ভুট্টা চাষে ঝুকে পড়ছে কৃষক
প্রকাশ: ০৩:৩৯ pm ১০-০১-২০১৭ হালনাগাদ: ০৩:৩৯ pm ১০-০১-২০১৭
 
 
 


বগুড়া প্রতিনিধি : জেলায় ভুট্টার আবাদ বাড়ার চাহিদা নিয়ে চাষাবাদ শুরু করেছে কৃষকরা।বাজারে চাহিদা, ভালো দাম এর সাথে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভুট্টার ভালো আবাদ পাওয়া যাচ্ছে।

চলতি বছর রবি ভুট্টা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯ হাজার ৬৩ হেক্টর জমিতে। চাষাবাদের বিপরীতে ফলন ধরা হয়েছে প্রায় ৬৪ হাজার ৮০০  মেট্রিক টন।

বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, জেলায় বেশি ভুট্টার চাষাবাদ হয়ে থাকে শেরপুরে, কাহালু, দুপচাঁচিয়া, ধুনট ও নন্দীগ্রামে। ভুট্টা চাষে খরচ যেমন কম, অন্যদিকে ফলন এবং লাভও বেশি।একারণে চাষিদের মাঝে ভুট্টার চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে।

ভুট্টার বড় একটি মাছ ও মুরগী খাদ্য হিসেবে ব্যববহার বৃদ্ধির কারণে জেলায় ভুট্টা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে চাষিরা। ভুট্টা চাষ লাভবান বলে চাষিরা বেশি ফলন পাওয়ার আশায় উন্নতজাতের ভুট্টা চাষ করে থাকে।

বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় ভুট্টা চাষে চাষিরা লাভবান হওয়ায় গত বছরের চেয়েও ভুট্টা আবাদ বেড়েছে। অল্প পুঁজিতে বেশি লাভবান হওয়ায় ভূট্টা আবাদের প্রতি আগ্রহ দেখাচ্ছেন কৃষকরা।  মাটির আর্দ্রতা শুস্ক ও বেলে দোঁ-আশ হওয়ায় ভুট্টা চাষে উন্নতজাত ব্যববহার করার কারণে বগুড়া জেলায় ভুট্টার ফলনও বেশি পাওয়া যায়।

২০১৩ সালে জেলায় মোট ফলন হয়েছে ৭ হাজার ৭২৮ মেট্রিক টন। ২০১৪ মৌসুমে জেলায় ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় প্রায় ৮ হাজার হেক্টর। ২০১৫ মৌসুমে রবি (শীতকালিন) ভুট্টার চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৮ হাজার ৫০০ হেক্টর। আর এবছর অর্থাৎ চলতি মৌসুমে বগুড়া জেলায় ভুট্টার আবাদ ধরা হয়েছে ৯ হাজার ৬৩ হেক্টর জমিতে।

এর বিপরীতে ফলন ধরা হয়েছে ৬৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন।পুরো ডিসেম্বর মাস রোপন শেষে জমির পরিমান ৮ হাজার হেক্টর ছাড়িয়ে গেছে।আবাদকৃত জমিতে উন্নতজাতের ভুট্টা আবাদ হয়েছে বেশি।আগামী মার্চ মাসে  এ ফসল কর্তন হবে  জানা যায়।বগুড়া সদরের চাষি মোঃ মামুন জানান, গত বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ভুট্টার ভালো ফলন পাওয়া গেছে।

এবার সবেমাত্র ভুট্টা চাষ করা হয়েছে। আশা করা ভালো ফলন পাওয়া যাবে। বাজারে ভুট্টার চাহিদা রয়েছে।গত বছর শুরুতে ভুট্টার মন ১ হাজার টাকা করে বিক্রি হয়েছে।বাজারে ভুট্টার যোগান বেশি হওয়ার কারণে সেই ভুট্টার মন বিক্রি হয়েছে সাড়ে ৬’শ থেকে ৭’শ টাকা।

এবার ভুট্টার দাম প্রতি মন ৮’শ থেকে ৯’শ টাকা থাকলে ভুট্টা চাষিরা ভালোভাবে লাভের মুখ দেখতে পাবে।শেরপুর উপজেলার শফিকুল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক, ফেরদৌস ফকির, সামছু ফকির, আব্দুল হাই, সামছুলহক একাধিক চাষী জানান, শেরপুর উপজেলায় ভূট্টার চাষ হয়ে থাকে। চাষ বাসে ধান, সবজি ও আলুর পরই রয়েছে ভুট্টা।

উপজেলায় মুরগী ফার্ম রয়েছে অনেক। ফার্মগুলোতে মুরগীর খাবার হিসেবে ভূট্টা ব্যবহার করা হচ্ছে।মুরগীর খাদ্যমান হিসেবে ভুট্টা বেশ সহায়ক। তাছাড়া স্থানীয় বাজারে ভুট্টার চাষ আগে থেকে বেড়েছে।চাষী মজিবর রহমান জানান, ভুট্টার জমিতে পানি অন্য আবাদেও তুলনায় সেচ কম দিতে হয়।

সেচ সুবিধার কারণে এ অঞ্চলের কৃষকরা ধান আবাদেও চেয়ে ভুট্টার আবাদ বেশি করে থাকে। ভুট্টা বাজারে বিক্রি করার পরেও ক্ষেত থেকে ভুট্টার শুকনা গাছ, ভুট্টার শুকনা মোচা জ্বলানি হিসেবে বিক্রি করেও ২ থেকে ৩ হাজার টাকা আয় করতে পারে।ধুনট উপজেলার গোসাইবাড়ী এলাকার চাষী রফিকুল ইসলাম ও আব্দুল বারীক জানান, যমুনার পলি পড়া চরে ব্যাপক আকারে ভুট্টা চাষ হয়ে থাকে।

ভুট্টার আবাদে লোকসান নেই বলে চাষিরা আগের  থেকে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছে। এ বছরও চাষিরা ভুট্টার চাষ শুরু করেছে। ভুট্টা দিয়ে এখন বেশি ব্যবহার করা হয় মাছ, মুরগী ও আটা হিসেবে। এ কারণে ভুট্টার চাহিদা বেশি। চাহিদা বেশি থাকায় বাজারে দামও পাওয়া যায়। গত বছর ভুট্টার ভাল ফলন পাওয়া গেছে। প্রতি বিঘায় ২৪ থেকে ২৭ মন ফলন পাওয়া গেছে।

উন্নতজাতের ভুট্টার ফলন পাওয়া গেছে ২৯ থেকে ৩০ মন করে। ফলণ পাওয়ার সাথে সাথে বাজারে দামও ভাল ছিল।শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম রাঞ্জু জানান, এ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কৃষি বিভাগের মাধ্যমে চাষিদের বিভন্ন বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করা হয়। তথ্য প্রদানের নির্ধারিত ডেস্ক রয়েছে।

ভুট্টা চাষিরা সেখান থেকে এ বছর ভুট্টার বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করছে। ইতিমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় ভুট্টা চাষ শুরু হয়েছে। চাষিদের সুবিধার্থে শেরপুর বারদুয়ারী হাটবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে চাষিরা তাদের উৎপাদিত পন্য হাটে তুলে সহজে বিক্রি করতে পারে।

বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক প্রতুল চন্দ্র সরকার জানান,আশা করা হচ্ছে গত বছরের চেয়েও এ বছর ভুট্টার ভাল ফলন হবে।গত বছর জেলায় ভাল ভুট্টার ফলন পাওয়া গেছে।আবাহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবারও ভুট্টার ভালো ফলন পাওয়া যাবে।

চলতি বছর জেলায় ভুট্টার আবাদ বেড়েছে। রবি ভুট্টা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯ হাজার ৬৩ হেক্টর জমিতে। চাষাবাদের বিপরীতে ফলন ধরা হয়েছে প্রায় ৬৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন। উন্নতজাতের ফলন বৃদ্ধিজনিত কারণে ফলনও বৃদ্ধি পাবে। সে  ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ফলন পাওয়া যাবে।

এইবেলাডটকম//দীপক/এফএআর

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
Loading...
 
 
 
Loading...
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক: সুকৃতি কুমার মন্ডল

Editor: ‍Sukriti Kumar Mondal

সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ করুন # sukritieibela@gmail.com

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

   বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ:

 E-mail: sukritieibela@gmail.com

  মোবাইল: +8801711 98 15 52 

            +8801517-29 00 01

 

 

Copyright © 2017 Eibela.Com
Developed by: coder71