শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শনিবার, ১১ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
ফণীভূষণ মজুমদার একজন বিপ্লবী কর্মবীর
প্রকাশ: ০১:৪৪ pm ২১-১২-২০১৬ হালনাগাদ: ০১:৪৪ pm ২১-১২-২০১৬
 
 
 


নারগিস সুলতানা : ফণীভূষণ মজুমদার একজন বিপ্লবী কর্মবীর। আপদমস্তক একজন রাজনীতি বীদ। আজ তাঁর ৩৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৮১ সালোর ৩১ শে অক্টোবর তিনি পরলোক গমন করেন।

উপমহাদেশ এবং বাংলাদেশের রাজনীতিতে অসাধারন ভুমিকা পালন কারী এই রাজনীতিবিদের জীবনালেখ্য হতে পারে যে কোন লোকের জন্য অনুকরনীয়।আদর্শ ও দর্শন ভিত্তিক রাজনীতি ছিল তাঁর জীবনের মুল মন্ত্র।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের পর সামরিক কুচক্রী মহল আওয়ামীলীগ কে ধ্বংশ করার পায়তারায় ১৯৭৯ সালের নির্বাচন কে হাতিয়ার করে নেয়। বাংলাদেশ আওয়মূলীগ তখন রাজৈর কোটালীপাড়া থেকে ফণীভূষন মজুমদারকে মনোনয়ন দেয়।( রাজৈর- কোটালীপাড়া তখন এক আসন ছিল)। তিনি কোটালীপড়াতে স্থায়ী ভাবে থাকা শুরু করেন।

তখন একটা ডাকবাংলো ছিল ওখানে থাকতেন এবং নিরামিষভোজী এই মহান ব্যাক্তির খাবার আসতো তৎকালীন কোটালীপাড়া ছাত্রলীগের সভাপতি কিবরিয়া দাড়িয়ার বাড়ী থেকে।

নির্বাচনে কোটালীপাড়া থানা আওয়ামীলীগ তাঁর বিরোধিতা করে, কোটালীপাড়া আওয়ামীলীগ থেকে কাজী আশ্রাফ উদ্দিন কে নমিনেশন দেয়। তিনি চশমা মার্কা নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করেন। ফণীবাবুর নৌকা প্রতিক। আার স্বতন্ত্র প্রার্থী মুংগু কাজী হুক্কা মার্কা।

কোটালীপাড়ার থানা কমিটির কেউ ই তাকে সহযোগীতা করেন না। ছাত্রলীগ থেকে সভাপতি কিবরিয়া দাড়িয়া এবং মাঝবাড়ী স্কুলের ছাত্রলীগ সভাপতি আমিনুজ্জামান মিলন তার নির্বাচন করে। আর গোপালগঞ্জ মহাকুমা থেকে মোল্লা জালালুদ্দিনের নেতৃত্বে গোপালগঞ্জের নেতারা তার পক্ষে কাজ করেন।

নারী পুরুষ নির্বিচারে সবার সাথে কথা বলতেন এবং সবার সুখ দুঃখের কথা শুনতেন এই মহান নেতা। নির্বাচন শেষে দেখা যায় বিপুল ভোটে তিনি বিজয়ী হয়েছেন। এই নির্বাচনের পরই তিনি অসুস্থ হয়ে পরেন এবং তাকে পি্জি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সুস্থ হয়ে বাসায় আসার পর আবার অ সুস্থ হলে তাকে ৮১ সালের মাঝামাঝিতে আবার ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

৩১শে অক্টোবর মহান এই রাজনীতিবীদ পরলোক গমন করেন। শ্রদ্ধার সাথে স্বরন করছি এই রাজনীতিবিদকে। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করছি।

দুঃখ একটাই সেই আমল থেকে রাজনীতির সাথে জড়িত কিবরিয়া দাড়িয়া, আর আমিনুজ্জামান মিলন এখন রাজনীতিতে কতটা মুল্যায়িত আমি জানিনা শুধু জানি বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তারা মনোনয়ন পান না। যদিও বা পান, তা নিয়েও চলে রশি টানাটানি। হায়রে রাজনীতি।

এইবেলাডটকম/এএস

 

 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71