রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮
রবিবার, ৭ই শ্রাবণ ১৪২৫
 
 
নরসিংদীতে ২ হিন্দু কিশোরীকে ধর্ষণ
প্রকাশ: ০৯:৩৫ am ১৮-১২-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:৩৫ am ১৮-১২-২০১৭
 
নরসিংদী প্রতিনিধি
 
 
 
 


নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার পুটিয়া ইউনিয়নের ঝাউয়াকান্দি গ্রামে হিন্দু পরিবারের ১৩ ও ১৪ বছরের দুই কিশোরীকে কোমল পানির সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পান করিয়ে অচেতন করে পাশবিক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার সকালে সরেজমিনে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় ভিকটিমদের চোখেমুখে আতঙ্কের ছাঁপ বিরাজ করছে।

ভিকটিমের অভিভাবকের লিখিত অভিযাগে জানা যায়, স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের জেএসসি পরীক্ষার্থী ভিকটিম (১৩) তার সমবয়সী  ভিকটিম (১৪) কে সাথে নিয়ে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে নিজ বাড়িতে গল্প করছিল। বাড়ির অন্য সদস্যরা পাশেই একটি বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানে চলে যায়। এ সময় পাশ্বর্তী গ্রামের আলামিন (৩৫) ও সালুরদিয়া গ্রামের স্বপন রবি দাস ভিকটিমদের ফাঁকা বাড়িতে প্রবেশ করে তাদেরকে কথা বলার অজুহাতে ঘরের বাহিরে ডেকে নিয়ে যায়। কথোপকথনের এক পর্যায়ে আলামিন ভিকটিম ও তার ফুফুকে কোমল পানীয় পান করার প্রস্তাব করলে তারা রাজি হলে কৌশলে কোমল পানির সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পান করায়। কোমল পানীয় পান করার পর ভিকটিম (১৩) ও ভিকটিম (১৪) অচেতন হয়ে পড়লে চতুর আলামিন ও তার সহযোগি ভিকটিমদ্বয়ের  উপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। আলামিন কিশোরীদের মুখ চেপে তুলে বাড়ির পাশে ঝাড়তলায় নিয়ে পাশবিক নির্যাতন করে।

ঘটনার এক পর্যায়ে ভিকটিমের পিতা বাড়িতে প্রবেশ করে মেয়েকে ডাকাডাকি করে সাড়াশব্দ না পেয়ে ঘরে ঢুকে মেয়েকে অচেতন ও বেআভ্রু অবস্থায় দেখতে পায়। পিতার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এলে ঝাড়তলা থেকে অচেতন ও বিবস্ত্র অবস্থায় উদ্ধার করে অপরজনকে। ঐ রাতেই দুজন ভিকটিমকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আলাপকালে ভিকটিমরা জানায়, আলামিন তাদের সরল বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে কোমল পানির সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পান করালে তারা অচেতন ও দুর্বল হয়ে পড়ায় আলামিন ও তার সহযোগির জঘন্য নির্যাতনে বাঁধা দিতে পারেনি এবং সকল কিছু মনে করতে পারছে না তারা। এছাড়া আলামিন তাদেরকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে বলে জানান। এ সময় যন্ত্রণাকাতর মেয়ের পাশে বসা হতদরিদ্র চা বিক্রেতা বাবা জানায়, বিষয়টি স্থানীয় মেম্বারসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করে শিবপুর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এ ব্যাপারে শিবপুর মডেল থানার এস.আই. আনোয়ার হোসেন জানান, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর এলাকায় গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি এবং আসামীর বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাইনি। তাছাড়া বিষয়টি গ্রাম্য শালিশে মীমাংসার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বিবাদীপক্ষরা। তাই এখনো লিখিত অভিযোগটি এফআইআর করা হয়নি।

নির্যাতিতদের পারিবারিক সূত্র জানায়, আলামিন এলাকায় প্রকাশ্যে চলাফেরা করছে। একটি প্রভাবশালী মহল নির্যাতনের বিষয়টি ধামাচাপা দিতে পুলিশকে ভুল তথ্যদিয়ে সময়ক্ষেপন করে  নির্যাতনের আলামত নষ্ট করার পায়তারা করছে। এখন পর্যন্ত পুলিশ হাসপাতালে এসে ভিকটিমদের কোন খবর নেয়নি। ঘটনার দুইদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও কোন প্রশাসনিক পদক্ষেপ না নেয়ায় এলাকাবাসী, হিন্দু সম্প্রদায় ও ভিকটিমের সহপাঠীরা ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেন। তারা জানায়, নির্যাতনের সুষ্ঠ বিচার না পেলে তারা বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করবে।

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71