বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ৯ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
গ্যাস্ট্রিক কেন হয়? 
প্রকাশ: ১০:৫৫ am ২৮-১১-২০১৮ হালনাগাদ: ১০:৫৫ am ২৮-১১-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


আমাদের দৈনন্দিন জীবনে গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটি খুব পরিচিত নাম। চিকিৎসকেরা যদিও দুটোর মধ্যে পার্থক্য করেন, কিন্তু সাধারণ মানুষের কাছে বুক জ্বলা বা পেট ফাঁপা মানেই গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটি। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে পেপটিক আলসারও বলা হয়ে থাকে। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় অনেকেই ভোগেন। তবে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মানুষের মধ্যে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা তুলনামূলক বেশি। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বলতে আমরা বুঝি খাওয়ার আগে বা পরে বুক জ্বালাপোড়া করা। অনেকক্ষণ ধরে পেট খালি থাকলেও পেট ব্যথা করে। গ্যাসের জন্যে পাকস্থলীতে হালকা থেকে অনেক গভীর সমস্যাও হতে পারে। বুকে ব্যথার তীব্রতা বেড়ে গেলে অসম্ভব কষ্ট হয়। তখন গ্যাস্ট্রিকের ব্যথানাশক ঔষধ খাওয়া ছাড়া উপায় থাকে না। বিভিন্ন কারণে আমাদের গ্যাসের সমস্যা হতে পারে। এ অবস্থাকে প্রধানত গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বলা হয়।

বয়সভেদে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বিভিন্ন রকম। নারীদের ক্ষেত্রে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার একটি বড় কারণ হলো গলব্লাডারে পাথর। পুরুষের তুলনায় নারীর ক্ষেত্রে এ প্রবণতা বেশি। এটি হলে প্রথমদিকে বমি বমি ভাব থাকে, অরুচি হয়; কোনো কিছু খেতে ইচ্ছে করে না।

আমাদের দেশের বেশির ভাগ লোক সকালবেলা খায় না। দুপুর ১২টা বা ১টার দিকে নাশতা করে। এটি গ্যাস্ট্রিকের বড় একটি কারণ। অথবা একবারে দুপুরের খাবার খেয়ে ফেলে। রাতের খাবার থেকে দুপুরের খাবারের মাঝখানে লম্বা ব্যবধানের কারণে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়। এ ছাড়া রাতে বেশি খাবার খেলেও এ সমস্যা হতে পারে।

আমাদের দেশে মানুষের অফিসের সময়, জীবন-যাপন এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে, বাসায় ফিরতে রাত ৮টা থেকে ৯টা বেজে যায়। প্রায় মানুষই রাতের খাবার বিলম্বে খেয়ে থাকে। খাবার গ্রহণের পরপরই আবার ঘুমিয়ে পড়ে। এটিও গ্যাস্ট্রিকের অন্যতম প্রধান কারণ। এ ধরনের সমস্যা হলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন, ভালো থাকুন।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71