রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯
রবিবার, ২রা আষাঢ় ১৪২৬
 
 
কাশ্মীরেও আছে একটি গ্রাম, যার নাম বাংলাদেশ!
প্রকাশ: ০৩:৫৭ pm ১০-০৩-২০১৯ হালনাগাদ: ০৩:৫৭ pm ১০-০৩-২০১৯
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


কাশ্মীরকে বলা হয় ভূস্বর্গ। এতটাই দৃষ্টি নন্দন আর মনোরম এর প্রকৃতি। মোগল সম্রাট জাহাঙ্গীর থেকে শুরু করে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও মজেছিলেন এর অপরূপ রূপে। তার ‘বলাকা’ কাব্যগ্রন্থের কিছু কবিতা লিখেছিলেন কাশ্মীরে বসেই। অনিন্দ্য সুন্দর কাশ্মীরের মাটিতে মৃত্যুবরণ করতে চেয়েছিলেন সম্রাট জাহাঙ্গীর। কেবল বিখ্যাত ব্যক্তিরাই নন, প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে বহু মানুষ যান কাশ্মীর ভ্রমণে। বেড়ানোর জন্য আমাদের অনেকেরই প্রিয় স্থান এটা।

কিন্তু মজার কথা কি জানেন? এশিয়ার সুইজারল্যান্ড বলে খ্যাত কাশ্মীরেও আছে এমন এক টুকরো গ্রাম, যার নাম বাংলাদেশ।

কাশ্মীরে সবমিলিয়ে ২২ টি জেলা। শ্রীনগর থেকে ৮০ কিলোমিটার উত্তরে গেলে যে জেলা পড়বে তার নাম বান্ডিপুরা। এই বান্ডিপুরা জেলার আলুসা তহশিলে একটি গ্রামের নাম বাংলাদেশ। বিখ্যাত উলার হৃদের তীরে ভাসমান এই গ্রামে বাইরের লোকজনের খুব একটা আনাগোনা নেই। বান্ডিপুরা-সোপুরের মধ্য দিয়ে মাটির রাস্তা ধরে পাঁচ কিলোমিটার হাঁটলেই দেখা মিলবে বাংলাদেশের, মানে ওই গ্রামের।

স্বাভাবিকভাবেই আপনাদের মনে প্রশ্ন ওঠেছে ওই গ্রামের এমন নামকরণের কারণ কি? আপনি জেনে অবাক হবেন, কাশ্মীরের এই গ্রামটির সাথে ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের যোগসূত্র রয়েছে। ১৯৭১ সালে জুরিমন নামক এক গ্রামের ৫-৬টি ঘরে আগুন লাগে। আগুনের শিখায় জ্বলে পুড়ে যায় ঘরগুলো। গৃহহীন হয়ে পড়েন নিরীহ সাধারণ এই মানুষগুলো। তারা তখন পুড়ে যাওয়া জায়গা থেকে কিছুটা দূরে পার্শ্ববর্তী ফাঁকা জায়গায় সবাই মিলে ঘর তোলেন। সেই বছরই ডিসেম্বরে পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীন হয়ে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্ম হয়। সেই একই সময় গৃহহীন মানুষগুলো দুঃসময় মোকাবেলা করে শুরু করেন তাদের নতুন জীবন। তাই তারা তাদের নতুন গ্রামের নাম রাখেন বাংলাদেশ।

উলার হৃদের তীরে এই গ্রামটি সৌন্দর্যে কিন্তু কম যায় না! চারদিকে জল, পেছনে সুউচ্চ পর্বত, সব মিলিয়ে অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ছড়িয়ে রয়েছে গোটা গ্রাম জুড়ে। কিন্তু, নাগরিক কিছু সাধারণ সুবিধা এখনো ঠিক ঠাক ভাবে পৌঁছে না গ্রামবাসীর কাছে। তাই তারা কোনো বিদেশি দেখলে আশ্চর্য হয়। আর বিদেশিরাও তো সেখানে যান কদাচিৎ।

মাত্র ৭ বছর আগে কাগজে কলমে পৃথক গ্রামের মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ। বান্ডিপুরার ডিসি অফিস ২০১০ সালে এই আলাদা গ্রামের মর্যাদা দেন। ৫/৬ ঘর থেকে শুরু হওয়া বাংলাদেশ গ্রামে এখন আছে পঞ্চাশেরও বেশি ঘর। তবে এই প্রজন্মের অনেকে গ্রামটির জন্ম ইতিহাস জানেন না। গ্রামবাসীর প্রধান জীবিকা মাছ ধরা। পাশাপাশি তারা পানি আর বাদাম সংগ্রহ করে থাকে।

ভাসমান এই গ্রাম, বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ, কাশ্মীর সব মিলিয়ে যেন আশ্চর্য কাকতালীয় যোগাযোগ! কোথায় যেনো একটা মায়া কাজ করে শুনলে। বিশেষ করে যে গ্রামটির জন্ম একাত্তরে, স্বাধীন বাংলাদেশ নামের রাষ্ট্রটি জন্মের বছরে! এই হিম শীতল দিনে এই বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সেই ‘বাংলাদেশ’র বসিন্দাদের প্রতি অনেক শুভকামনা। ভালো থেকো বাংলাদেশ, যুগ যুগ এমনকি শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71