বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৫ই পৌষ ১৪২৫
 
 
আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে গরুর হাল 
প্রকাশ: ০৫:১৯ pm ১৪-১১-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:১৯ pm ১৪-১১-২০১৮
 
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি 
 
 
 
 


এক সময়ে লাল সবুজের বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের মাঠে কাকডাকা ভোরে কৃষকদের গরুর সঙ্গে লাঙ্গাল ও জোয়াল কাঁধে নিয়ে জমি চাষ করার জন্য মাঠে যাওয়ার মনোরম দৃশ্য চোখে পড়তো কিন্তু এখন আর সেই মনোরত দৃশ্য অতটা আর চোখে পড়ে না। কৃষি প্রধান দেশ বাংলাদেশ। কৃষক জমি চাষের কাজে একসময় কাঠের তৈরি লাঙ্গল, জোয়াল, মই আর হালের বলদ ব্যবহার করত। চাষাবাদের এসব উপকরণ মানুষ হাজার বছর ধরে ব্যবহার করে আসছে। কিন্তু আজ কালের আবর্তনে এসবের ব্যবহার প্রায় বিলুপ্তির পথে। আধুনিকতার কথার ছোঁয়ায় ও বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের ফলে কৃষকদের জীবনে এসেছে নানা পরিবর্তন আর সেই পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে কৃষিতে। তাই আর আগের মতো গ্রাম-গঞ্জে, মাঠে গান  গেয়ে বলদ দিয়ে জমি চাষ করতে দেখা যায় না কৃষকদের। 

বর্তমানে পরিবেশ বান্ধব লাঙ্গল আর জোয়ালে জায়গা দখল করে নিয়েছে যান্ত্রিক পাওয়ার টিলার ও ট্রাক্টর। আগে লাঙ্গল ছাড়া চাষাবাদের কথা চিন্তা করা যেত না কিন্তু আধুনিক যুগে চাষাবাদের জন্য ট্রাক্টর বা পাওয়ার টিলার মত যান্ত্রিক সব উপকরণ আবিস্কৃত হয়েছে। এব সব যন্ত্র আবিষ্কারের ফলে আগের তুলনায় সময় লাগে, শ্রম এবং অর্থে সাশ্রয় হয় ফলে কৃষক যান্ত্রিক যন্ত্র ব্যবহার করে কৃষক চাষাবাদ করছে। ব্যাপক চাহিদা থাকায় কেউ কেউ যন্ত্রটি ভাড়া দিয়েও ব্যবসা করছে। 

মোঃ মমিন মিয়া (৩০) জানান আগে তিনি বলদ দিয়ে হাল চাষ করতেন। কিন্তু বলদ দিয়ে তেমন আর হাল চাষ করা হয় না। তবে যে সব জমিতে যাতায়তের ব্যবস্থা ভালো না সেই সকল জমিতে বলদ হাল চাষ করা হয়। লাঙ্গল মইসহ কৃষি সরঞ্জাম তৈরী যাদের পেশা তারাও বেশি ভাগ সময় বেকার বসে থাকছেন। 

কৃষিবিদদের মতে লাঙ্গল জোয়াল বলদের কাঁধে বসিয়ে হাল চাষ পদ্ধতি পরিবেশ বান্ধব। কারন গরুর হাল থেকে জৌব সার পাওয়া যায়। এই সার জমির উবর্বতা শক্তি ও পুষ্টি গুন বৃদ্ধি করে। তাই এ পদ্ধতি লাভ জনক ও পরিবশ সহায়ক ছিল। তবে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে হাল চাষের সময় কম লাগে। এছাড়া অতিরিক্ত জনবলের প্রয়োজন হয় না। এছাড়া এ পদ্ধতির হাষ চাষে কৃষক অনেকটাই ঝামেলা মুক্ত বলে মনে করেন। 

নি এম/রতি কান্ত 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71