eibela24.com
বুধবার, ২৪, মে, ২০১৭
 

 
কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি আলমসহ ৪১ জনকে কারাগারে প্রেরণ
আপডেট: ০৭:৫৮ pm ১১-০১-২০১৭
 
 


কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা দুটি মামলায় কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম ও কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল মিল্লাতসহ ৪১ জন নেতাকর্মীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।

এছাড়াও ৪১ নেতাকর্মীর মধ্যে অন্যরা হলেন-কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের ভাইসচেয়ারম্যান মেসবাহ উল হক, কুলিয়ারচর  পৌরসভার কাউন্সিলর আজহার উদ্দিন, কুলিয়ারচর  পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত  হোসেন প্রমুখ।

আজ বুধবার দুপুরে তারা আদালতে হাজির হলে অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আতাউল হক তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির নবগঠিত কমিটির নেতাদের জন্য গত ১২ই ডিসেম্বর ভৈরব, কুলিয়ারচর, কটিয়াদী এবং  জেলা সদরে সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়েছিল।

কুলিয়ারচরের দ্বাড়িয়াকান্দি ও আগরপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে ঘিরে পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এতে দুই পুলিশ সদস্য ছাড়াও কয়েকজন  নেতাকর্মী আহত হন। পরে পুলিশ গুলি বর্ষণ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় কুলিয়ারচর থানা পুলিশ ওইদিন (১২ডিসেম্বর) বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩) ধারাসহ দ-বিধির ১৪৩, ৩৩২, ৩৫৩ ও ১১৪ ধারায়  মোট ১০০ জনকে আসামী করে দুটি পৃথক মামলা (মামলা নং ৬ ও ৭) দায়ের করেন। 

এদিকে জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম আদালতে উপস্থিত হলে বিএনপিপন্থী একদল আইনজীবী তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

জেলা বিএনপির কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে পদবঞ্চিত গ্রুপটি শরীফুল আলমকে দায়ী করে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন  শ্লোগান দেন। এ সময় শরীফুল আলমের সমর্থকদের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় কয়েকটি চেয়ার ভাঙচুর করা হয়।

 

এইবেলাডটকম/নজরুল/গোপাল