eibela24.com
শনিবার, ২৮, নভেম্বর, ২০২০
 

 
সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্যজনক মৃত্যু !
আপডেট: ১২:৫০ am ১৫-০৬-২০২০
 
 


বলিউড ব্লকবাস্টার হিট সিনেমা পিকে এর সরফরাজ চরিত্র খ্যাত জনপ্রিয় অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার মুম্বাইয়ের বান্দ্রারবাড়ি থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সুশান্ত আত্মহত্যা করেছেন বলে পুলিশ ধারণা করলেও তার মৃত্যুর রহস্যজট খুলছে না। কারণ এখনও পর্যন্ত সুশান্তের ফ্ল্যাট থেকে কোনো সুইসাইড নোট উদ্ধার হয়নি।

নিজের ফ্ল্যাটে গলায় ফাঁস লাগিয়ে সুশান্ত আত্মহত্যা করেছেন বলে পুলিশকে প্রথম খবর দেন তার বাড়ির পরিচারিকা। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মাত্র ৩৪ বছর বয়সী এই বলি তারকা কি কারণে আত্মহত্যা করতে পারেন সে সূত্র খুঁজছে বান্দ্রা পুলিশ।

পুলিশের বরাত দিয়ে ভারতের সংবাদমাধ্যম জি নিউজের খবর, সুশান্তের ঘনিষ্ঠরা জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন ধরে অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। ঠিক করে কারও সঙ্গে কথা বলতেনা না। তাছাড়া ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কখনও কারও শেয়ার করতেন না সুশান্ত।

মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চের গোয়েন্দাদের প্রাথমিক অনুমান, আত্মহত্যা করেছেন বলিউড অভিনেতা। যদিও অন্য সব সম্ভাবনাই খতিয়ে দেখছেন তাঁরা।

তবে এটা যদি আত্মহত্যাই ধরে নেওয়া হয়, তাহলেও উঠে আসছে একটাই প্রশ্ন— কেন? কেরিয়ারের প্রায় শুরুর দিকেই কেন আত্মহত্যা করলেন তরুণ অভিনেতা? এই প্রশ্নেই উঠে আসছে একাধিক সম্ভাবনা এবং জল্পনা। প্রথমেই এসেছে পাঁচ দিন আগে বলিউডের এক আত্মহত্যার ঘটনা। গত ৮ জুন মালাডের বাড়ির ১৪ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন দিশা সালিয়ান।

কিন্তু দিশার সেই মৃত্যুর সঙ্গে সুশান্তের মৃত্যুর কী সম্পর্ক? এই দিশা সালিয়ান ছিলেন সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার। বলিউডের অন্দরে যাঁদের আনাগোনা, তাঁরা জানেন, বলিউডে সুশান্তের প্রতিষ্ঠার পিছনে বিরাট অবদান রয়েছে সেলিব্রিটি ট্যালেন্ট ম্যনেজার দিশা সালিয়ানের। কিন্তু পরে সুশান্তের ম্যানেজার হিসেবে আর দেখা যায়নি তাঁকে। যদিও দিশা নিজেই ছেড়েছিলেন, না কি সুশান্ত তাঁকে সরিয়েছিলেন, সেই বিষয়টি স্পষ্ট নয়।

এদিকে দিশার মৃত্যুর তদন্ত এখনও শেষ হয়নি। তার এক সপ্তাহের মধ্যেই সুশান্তের রহস্যমৃত্যু। দুই মৃত্যু এবং দু’টিই আত্মহত্যা? এ কি নেহাতই সমাপতন? নাকি দুই মৃত্যুর মধ্যে কোনও যোগসূত্র রয়েছে? ভাবাচ্ছে গোয়েন্দাদের।

টেলিভিশন থেকে বলিউডে পা রেখেছিলেন ‘কাই পো চে’-র মাধ্যমে। বাণিজ্যিকভাবে সে ছবি সফল। পছন্দ হয়েছিল ফিল্ম ক্রিটিকদেরও। এর পর মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বায়োপিক ‘ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ সুপার হিট। বলিউডে কার্যত জমে গেল সুশান্তের ক্যারিয়ার। তার পর একে একে ‘রাবতা’, ‘কেদারনাথ’, ‘পিকে’, ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’, ‘ছিঁচোড়ে’র মতো মুভিতে অভিনয়। বিরাট সাফল্য না পেলেও সবগুলি ফ্লপ— এমনও বলা যায় না। কিন্তু এখানেই হতাশার কারণ খুঁজে পেয়েছে বলিউড। কেন?

এ বিষয়ে বলিউডের অনেকেই বলছেন, আসলে মূলত ধোনির বায়োপিকের পরে আর তেমন হিট সেই অর্থে দিতে পারেননি সুশান্ত। শুরুর কয়েক বছরেই কার্যত পড়তির দিকে চলে যাচ্ছিল সুশান্তের ক্যারিয়ার। ‘ছিঁচোড়ে’র পর তেমন ভাল কাজও হাতে ছিলো না বলেই খবর। সেখান থেকেই ধীরে ধীরে বাসা বাঁধছিল হতাশা।

নি এম/