মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
মঙ্গলবার, ১৬ই ফাল্গুন ১৪২৩
সর্বশেষ
 
 
সুইজারল্যান্ডে ‘জার্নি টু জাস্টিস’ এর প্রদর্শণী
প্রকাশ: ০২:১৫ pm ০২-১১-২০১৬ হালনাগাদ: ০৮:৪২ am ০৩-১১-২০১৬
 
 
 


জেনেভা থেকে মোজাম্মেল হক মামুন:  ইন্টারন্যাশনাল পার্লামেন্ট ইউনিয়ন (অাইপিইউ) এর সম্মানিত সভাপতি ছাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, আগামীতে আই পি ইউ এর মাধ্যমে আর্ন্তজাতিক বিশ্বে , ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশে গনহত্যা ও গন ধর্ষণের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের উদ্দ্যোগ গ্রহন করা হবে। তিনি  বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিশেষত রোয়ান্ডা, আর্মেনিয়া, বসনিয়ার মত দেশ গুলোতে যখন গনহত্যা হয়েছে, জাতিসংঘ সহ আন্তর্জাতিক বিশ্ব তার স্বীকৃতি দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী যে বর্বর গনহত্যা ও গনধর্ষণ চালিয়েছে আজও তার স্বীকৃতি মেলেনি।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জেনেভাস্থ  বাংলাদেশ মিশনের মিলনায়তনে ‘ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম ফর সেক্যুলার বাংলাদেশ’  সুইজারল্যান্ড শাখা আয়োজিত, শাহরিয়ার কবিরের সদ্য নির্মিত প্রামান্য চিত্র ‘জার্নি টু জাস্টিস’ এর প্রদর্শণী পরবর্তী আলোচনায় তিনি প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন।

ছাবের হোসেন বলেন, আই পি ইউ-এর ১৩৬ তম সম্মেলন আগামী এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। ১ লা এপ্রিল থেকে ৫ই এপ্রিল ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য  আই পি ইউ সম্মেলনে ১৭৬ টি দেশের সংসদ সদস্যগন উপস্থিত থাকবেন। এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনে ১৯৭১ এর গনহত্যা বিষয়ে সমর্থন আদায়ের উদ্দ্যোগ নেওয়া হবে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রামান্যচিত্রের নির্মাতা, ৭১ এর ঘাতক দালাল নিমূল কমিটির কেন্দ্রেীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, লেখক শাহরিয়ার কবির বলেন , ১৯৭১ সালে জামায়েত ইসলামের নামে নারকীয় গনহত্যার যে সূচনা করেছিল, তারই ধারাবাহিকতা হলো আজকের গ্লোবাল টেরোরিজম। ইসলামের নামে বিশ্বব্যপী আইএস আইএস যে হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে জামায়াত ও মুসলিম ব্রাদার হুডের মত সংগঠনগুলো এর পেছনে মূল পরিকল্পনাকারী।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র রাষ্ট্রীয় শক্তি দিয়ে টেরোরিষ্ট শক্তিগুলোকে নিশ্চিহৃ করা সম্ভব এমনটি ভাবা ভুল হবে। রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপের পাশাপাশি এদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আর এই সামাজিক প্রতিরোধ তখনই সম্ভব যখন সমাজকে ডি-রেডিক্যালাইজড করা সম্ভব হবে। 

তিনি বলেন, পশ্চিমা বিশ্বকে নিজেদের স্বার্থেই মৌলবাদের বিরুদ্ধে সমাজকে রেডিক্যালাইজড হওয়া থেকে রক্ষা করতে হবে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির আলোচনায় প্রবীন রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী ও ষাটের দশকের ডাকসুর ছাত্র নেতা ইকবাল আহমেদ প্রামান্য চিত্র ‘জার্নি টু জাষ্টিস’ সময় উপযোগী বলে দাবী করেন। তিনি শাহরিয়ার কবিরকে এই উদ্দ্যোগ ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে অবিচল সাহসী কাজ করার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানের সভাপতি স্থায়ী মিশনের মান্যবর রাষ্ট্রদূত এম শামীম আহসান সমাপনী বক্ত্যবে বলেন ‘শহীদ জননী জাহানারা ইমাম ৯০ দশকে অসাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন সংগ্রাম শুরু করেছিলেন, লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির উত্তরাধিকার ভাবে সেই ধারাবাহিকতা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তার এই দুর্লভ প্রামান্যচিত্র ও অসীম সাহসী অগ্রযাত্রা বালাদেশ ও বিশ্বে তরুন প্রজন্মকে সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে পথ দেখাবে।

অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন, মিশনের উপ-স্থায়ী রাষ্ট্রদূত এম নজরুল ইসলাম এবং সমগ্র অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা ও উদ্যোগ গ্রহন করেন ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম ফর সেক্যুলার বাংলাদেশ, সুইজারল্যান্ড শাখার সভাপতি রহমান খলিলুর। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ‘ফোরাম ফর সেক্যুলার বাংলাদেশের সহসভাপতি মশিউর রহমান সুমন, সাধারণ সম্পাদক মাসুম খান, অর্থ সম্পাদক মিয়া বাবুল, উপদেষ্টা হাসান ইমাম খান, কার্যকরী সদস্য ও সংস্কৃতি কর্মী নিজাম উদ্দীন, অরুন বড়ৃয়া ও সুনীল চক্রবর্তী এবং দূতাবাসের সকল  কূটনৈতিক, পদস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচরীগন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে প্রামান্যচিত্রের জন্য জনাব শাহরিয়ার কবিরের সাহসী প্রশংসা করেন।

এইবেলা ডটকম/সুরঞ্জিত

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Migration
 
আরও খবর

 
 
 

News Room: news@eibela.com, info.eibela@gmail.com, Editor: editor@eibela.com

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

Copyright © 2017 Eibela.Com
Developed by: coder71