রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৭
রবিবার, ১০ই বৈশাখ ১৪২৪
সর্বশেষ
 
 
সম্পত্তি নিয়ে বিরোধে বাবাকে হত্যা
প্রকাশ: ০৫:১০ am ০৯-০১-২০১৭ হালনাগাদ: ০৫:১০ am ০৯-০১-২০১৭
 
 
 


ডেস্ক নিউজ: রাজশাহীতে ছেলে ও ছেলের বউদের হামলায় বাবার মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে।পুলিশ এক ছেলেকে আটক করেছে।

পরিবারের অভিযোগ, টাকা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে নগরের বহরমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।নিহত বাবার নাম আবদুল শেখ (৬৫)। তিনি রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী ছিলেন।ছেলেদের সৎমা আছিয়া শেখের ভাষ্য, বাবার সঙ্গে টাকাপয়সা নিয়ে দুই ভাইয়ের বিরোধ চলছিল।মেজ ছেলে শরীফুল ইসলাম (৩০) চাকরির জন্য বাবার কাছ থেকে সাড়ে চার লাখ টাকা নেন।পরে চাকরিও হয়নি।টাকাও ফেরত দেননি।এ নিয়ে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের চেম্বারে সালিস ডাকা হয়।কিন্তু সেখানে কোনো মীমাংসা হয়নি।

আছিয়া শেখ আরও অভিযোগ করেন, তিনি স্বামীর সঙ্গে নাশতা করতে বসেছিলেন।এ সময় মেজ ছেলে শরীফ এসে বাবার সঙ্গে ঝগড়া শুরু করে দেন।পরে বড় ছেলে আবু তাহের এসে ভাইয়ের পক্ষ নেন।দুই ছেলের দুই বউও এসে তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন।তাঁরা প্রথমে বাবার কাছ থেকে টাকা রাখার বাক্সের চাবি কেড়ে নেন।তারপর বাবাকে ধরে ঘরের ভেতরে নিয়ে যান।খাটের ওপরে ফেলে গলা টিপে ধরেন এবং বালিশ চাপা দেন।এতেই তাঁদের বাবা মারা যান।আছিয়া শেখ আরও অভিযোগ করেন, এ সময় তিনি চিৎকার করছিলেন।এ কারণে ছেলে ও ছেলের বউরা তাঁকেও মারধর করেন।তাঁরা তাঁকে মেরে ফেলতে চান।বাবাকে মেরে তাঁরা বাবার বাক্সটাও নিয়ে যান।তাতে টাকাপয়সা ও স্বর্ণালংকার ছিল।

দুই ছেলে ও তাঁদের বউরা পাশেই আরেকটি বাসায় ভাড়া থাকতেন।তাঁদের আরও এক ছেলে ও মেয়ে রয়েছে।তাঁরা অন্যত্র থাকেন।রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল পুলিশ বক্স সূত্রে জানা গেছে, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আবদুল শেখকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।পরে ময়নাতদন্তের জন্য তাঁর মরদেহ রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়।নগরের রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমান উল্লাহর ভাষ্য, শরীফকে বাড়ি থেকে আটক করা হয়েছে।বড় ছেলে আবুকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।আর কে কে এ ঘটনায় জড়িত, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।তিনি আরও বলেন, ছেলেরাই গলা টিপে বাবাকে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।ময়নাতদন্তের পরে বিষয়টি জানা যাবে।

এইবেলাডটকম/এবি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

News Room: news@eibela.com, info.eibela@gmail.com, Editor: editor@eibela.com

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

Copyright © 2017 Eibela.Com
Developed by: coder71