শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭
শুক্রবার, ৫ই কার্তিক ১৪২৪
সর্বশেষ
 
 
দীর্ঘ দু-মাসের ছুটি ঘোষণা, সেশন জোটের কবলে জাবি
প্রকাশ: ০৮:১১ pm ০৩-০৬-২০১৫ হালনাগাদ: ০৮:১১ pm ০৩-০৬-২০১৫
 
 
 


রিজু মোল্লা :জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) গ্রীষ্মকাল, রোজা ও ঈদ উপলক্ষে টানা ৬০ দিনের ছুটি ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। টানা দুই মাসের  ছুটি গত ২৬ মে থেকে শুরু হয়েছে যা চলবে আগামী ২৫ জুলাই শনিবার পর্যন্ত। দীর্ঘদিন ছুটি ঘোষনায় বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শিক্ষা কার্যক্রমে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা। যাতে করে পূর্বের আন্দোলন সংগ্রামের ফলস্বরূপ ছয় মাসের সেশন জোট এখন এক বছরে দাড়াবে। বিশ্ববিদ্যালয়কে চরম সেশন জোটের  হাত থেকে রক্ষার জন্য বিভিন্ন মহল এ দীর্ঘ ছুটির প্রতিবাদ জানিয়েছে।
পরপর দুবার উপাচার্য পরিবর্তন হলেও শিক্ষাকার্যক্রমে তেমন অগ্রগতি দেখা যায় নি। প্রশাসনের চরম দূর্নীতি, অবৈধ ভাবে শিক্ষক নিয়োগসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে গত চার বছরের প্রায় দুই বছরই বিশ্ববিদ্যালয়টিতে চলেছে উপাচার্য পতনের আন্দোলন। যার ফলে দুই জন উপাচার্য পদত্যাগ করলেও সেশন জোটের অভিশাপ থেকে রক্ষা পায়নি জাবির হাজার হাজার শিক্ষার্থী।
খোজ নিয়ে দেখা গেছে, কেবলমাত্র সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. শরীফ এনামুল কবীরের সময়ই সেশন জোট মুক্ত ছিল জাবি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে একাডেমিক কার্যকলাপ শেষ করার জন্য তিনি প্রতিটি বিভাগের শিক্ষকদের চাপ দিতেন। বিভাগে বিভোগে গিয়ে খোজ নিতেন সেশন জোট মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার জন্য । কিন্তু ছাত্রলীগ কর্তৃক ২০১২ সালের জানুয়ারিতে জুবায়ের নামের এক শিক্ষার্থী নিহত হবার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিনের আন্দোলনের ফলে পদত্যাগ করেন উপাচার্য শরীফ এনামুল কবীর। এর পর ২০১২ সালের মে মাসে দায়িত্ত্ব নেন উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই উপাচার্য আনোয়ার হোসেনর পদত্যাগের আন্দোলন শুরু হয়। যাতে করে কার্যত বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়।
এসময় বিশ্ববিদ্যালয়টিতে প্রায় ছয় মাসের সেশন জোটের সৃষ্টি হয়।এরপর রাষ্ট্রপতির নির্দেশে গত ২০১৪ সালের ২০শে ফেব্ররুয়ারি নির্বাচিত হন দেশের প্রথম নারী উপাচার্য হিসাবে অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম। নতুন উপাচার্য হিসাবে দায়িত্ত্ব গ্রহনের এক বছর শেষ হলেও শিক্ষার্থীদের জন্য তেমন সুখবর দেখা দেয়নি। কেননা এক বছরের শিক্ষা কার্যক্রম শেষ করতে হচ্ছে দেড় বছরে। আগে থেকে ছয় মাস পিছিয়ে থাকার পর দীর্ঘ দুই মাসের ছুটিতে প্রায় আরো চার মাসের সেশন জোটের সৃষ্টি হবে। এত করে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরাজ করছে চরম হতাশা।

এদিকে, ১ম বর্ষ ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা চারমাস পর ক্লাস করার সুযোগ পেলেও বছরের ছয় মাস অতিক্রান্ত হলেও তাদের ক্লাস-পরীক্ষা পুরোদমে শুরু হয়নি। আবার ২০১০-২০১১ শিক্ষাবর্ষের ৪র্থ পর্ব স্নাতক (চার বছরের)  পরীক্ষা ২০১৪ সালের মধ্যেই শেষ হবার কথা হলেও অকিাংশ বিভাগের ৪র্থ পর্ব স্নাতক সমমান পরীক্ষা ছয় মাস পর ২০১৫ সালের সাম্প্রতিক (মে-জুন) সময়ে শুরু হয়েছে।
তবে প্রশাসনের দীর্ঘ ছুটির দেওয়ার জন্য অনেকেই দাবি করছেন চলমান আন্দোলন ঠেকাতেই এ ছুটি ঘোষনা। দীর্ঘদিন ধরে ভবন দখল নিয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান, ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান ও কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগ আন্দোলন করছিল।যেখানে শিক্ষক লাঞ্চনা, শিক্ষার্থীকে আহত, শিক্ষকদের চাকুরী থেকে অব্যাহতি ও প্রশাসনিক ভবন দখলের মত কার্যকলাপ সংগঠিত হয়েছে। তাই এমন অপ্রীতিকর ও অস্থিতিশীলতা থেকে রেহাই পাবার জন্যই দীর্ঘ ছুটি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

উল্লেখ্য, এর আগে গ্রীষ্মকালীন ছুটি উপলক্ষে ২৬ মে থেকে ১৪ জুন পর্যন্ত ১৮দিন ছুটি ঘোষণা করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
এইবেলা ডটকম/প্রতিনিধি/এটি



  
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
Loading...
 
 
 
Loading...
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক: সুকৃতি কুমার মন্ডল

Editor: ‍Sukriti Kumar Mondal

সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ করুন # sukritieibela@gmail.com

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

   বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ:

 E-mail: sukritieibela@gmail.com

  মোবাইল: +8801711 98 15 52 

            +8801517-29 00 01

 

 

Copyright © 2017 Eibela.Com
Developed by: coder71