বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০
বৃহঃস্পতিবার, ১৬ই আশ্বিন ১৪২৭
সর্বশেষ
 
 
কোভিড ১৯ সংক্রামিত এক ডাক্তারের ফিরে আসার গল্প ! 
প্রকাশ: ১১:৩৯ pm ০৩-০৫-২০২০ হালনাগাদ: ১১:৩৯ pm ০৩-০৫-২০২০
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


“শুরুটা ছিল হাল্কা কাশি আর রানিং নোজ নিয়ে। উপরন্তু কয়দিন ধরে কেমন যেন টায়ারড লাগছিল। মাংসপেশীতে এবং হাড্ডিতে ব্যথা হচ্ছিল। দেরি না করে প্যারাসিটামল আর অ্যান্টিহিস্টামিন খাওয়া শুরু করলাম। সম্প্রতি সারাদিন রোগীদের নিয়ে অনেক ব্যস্ত থাকতে হতো তাই ভাবছিলাম হয়তো এরই জন্য বেশি দুর্বল লাগছে। প্যারাসিটামল খাওয়ার পর মাংসপেশির ব্যথা কমে গেল আর এন্টিহিস্টামিন এর জন্য নাকের পানি ও কিছুটা কমে গেল। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে যে একটু হাটাহাটি করলে খুব দুর্বল লাগছে। হালকা কাশিও আবার শুরু হলো।

সেদিন অফিস থেকে ফেরার পর শরীরটা একটু গরম গরম লাগছিল। থার্মোমিটার দিয়ে মেপে দেখি জ্বর ১০২ । কি করবো কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। এক সিনিয়র স্যার কে জানালাম। স্যার সাথে সাথে বললেন হসপিটালে চলে আসতে এবং টেস্ট করাতে। সেদিন রাতেই হাসপাতালে চলে আসি। পরেরদিন স্যাম্পল দেই টেস্ট করতে। সবাই আশ্বস্ত করছিল যে এটা নরমাল ভাইরাল ফিভার হবে এবং রিপোর্ট নেগেটিভ আসবে। কিন্তু সন্ধ্যায় জানতে পারলাম রিপোর্ট পজিটিভ। এটা শোনার পর বেশ কিছুক্ষণ মাথার বোধশক্তি হারিয়ে ফেলেছিলাম। মাথা কাজ করছিল না। কি করবো কিছু বুঝতে পারতেছিলাম না। পুরো বাকরুদ্ধ অবস্থা। নিজেকে আল্লাহর কাছে সমর্পণ করলাম।

গল্পটা বলার উদ্দেশ্য হলো সবাইকে এই ভাইরাসের আক্রমন এবং এর কস্টদায়ক অবস্থা সর্ম্পকে সাবধান করা এবং করোনার লক্ষন ও ট্রিটমেন্ট সম্পর্কে সবাইকে জানানো। এটা পড়ে যেন বাকিরা ট্রিটমেন্ট সম্পর্কে একটা গাইডলাইন পান।

প্রথমেই বলে রাখা ভাল যে এই রোগে ৮০% সংক্রমিতরাই থাকে Asymptomatic, মানে ৮০% রোগির কোন Symptoms থাকে না। তারা বুঝতে পারে না যে তারা করোনা রোগে আক্রান্ত হয়েছে। অথবা হাল্কা কাশি আর জ্বর দিয়েই এরা সেরে যায়। এই রোগীরা হচ্ছে খুব ভয়াবহ, কারণ এরা কখন কাকে আক্রান্ত করে দেয় বোঝা মুশকিল। বাকি ২০% রোগীর হয় complication. এদের multiorgan failure হবার chance বেশি। এর মধ্যে ৫% এর ICU support লাগে।

এখন Symptomatic ট্রিটমেন্ট সম্পর্কে বলি:
1. Tab Paracetamol 500mg for Fever
2. Tab. Fexo 120mg 1+0+1 as a antihistamine
3. Tab. Montair 10mg 0+0+1
4. ORS and water as much as can drink to maintain hematocrit level normal
5. Tab. Vitamin C 1+1+1 to increase immunity
6. Tab. Zinc 1+0+1 to increase immunity

রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর আরও কিছু ট্রিটমেন্ট শুরু করা হলো। এগুলো symptomatic ট্রিটমেন্ট এর বাইরে.
1. Tab. Reconil 200mg 2+0+2 on first day and then 1+1+1 on subsequent day for 10 days
2. Tab Faviparvir 8+0+8 on first day then 3+3+3 on subsequent days.
3. Cap Doxicap 100mg 1+0+1 for preventing atypical Pneumonia

পরেরদিন HRCT করা হলো চেস্ট এর। সেখানে ARDS with ground glass appearance with pneumonia আবিস্কার হোল। এরপর যুক্ত হল আরো নতুন কিছু ওষুধ
1. Inj Meropenam 1 gm IV TDS
2. Inj Moxaquine 400mg OD

জ্বর তাতেও কমেনি। এখনো 102 থেকে 104 পর্যন্ত জ্বর থাকছে। প্যারাসিটামল সাপোজিটরি, ইঞ্জেকশন, ট্যাবলেট কোন কিছুতেই জ্বর কমছে না। প্যারাসিটামল দিনে চারবার করে নিয়েও জ্বর কমে না। একটানা ৭ দিন জ্বর ছিল। এর মধ্যে একবারও জ্বর বেজলাইন এ নামেনি। তাই একান্ত বাধ্য না হলে প্যারাসিটামল যত কম খাওয়া যায় ততোই ভালো। না হলে লিভার ড্যামেজ হবে, লিভার এনজাইমগুলো বেড়ে যাবে।

এরপর আসা যাক অন্য ইনভেস্টিগেশন এর কথা। Liver function test সহ বাকি test গুলো abnormal হওয়া শুরু করল।
* ALT বাড়তে শুরু করল।
* LDH বাড়তে শুরু করল।
* Serum Ferritine বাড়তে বাড়তে 9000 এর উপরে চলে গেল।
* Hematocrit 49%
* D-dimer : Negetive
* WBC count : 18000
* Neutrophil: 90%
* Hb%: 19
* S.creatinine 0.9
* CRP : Negetive
* S. Procalcitonin : Normal

উপায়ান্তর না দেখে এরপর নতুন নতুন ওষুধ যোগ হতে থাকলো.
* Inj Hepacline
* Tab Ursocal 300mg 1+1+1
* Tab Mucomist DT 600mg 1+1+1
* Inj Clexane 40 mg
* Ferritine load কমানোর জন্যে Inj Desferioxime add করা হলো।
* Lung এ ARDS এর জন্ন্যে Tab Methylprednisolone 40mg 1+0+1 add করা হলো।

পরের দিন শরীরের দুর্বলতা আরো বেড়ে গেল। একটু নড়াচড়া করতেই breathlessness শুরু হলো। আমি বুঝতে পারছিলাম না এটা কি শ্বাসকষ্ট নাকি breathlessness. লক্ষণ দেখে মনে হচ্ছিল না যে এটা এজমা জাতীয় শ্বাসকষ্ট। Pulseoxymeter এনে অক্সিজেন Saturation দেখার চেষ্টা করলাম। দেখি Oxygen saturation 83-84% show করছে। প্রথমে ভাবলাম মেশিন নষ্ট তাই আরেকটা মেশিন নিয়ে আসলাম কিন্তু তাতেও দেখি একই রিডিং দিচ্ছে।

পালমোনোলজিস্টকে জানালাম। ঊনি সাথে সাথে অক্সিজেন শুরু করলেন। অক্সিজেন দেয়ার পর দেখি কিছুটা আরাম লাগছে। পরে বোঝা গেল যে আমি হাইপোক্সিয়াতে চলে যাচ্ছিলাম। অক্সিজেন saturation ফল করছিল। High flow(4-6lt) অক্সিজেন দেয়ার পর অক্সিজেন saturation আস্তে আস্তে বাড়তে শুরু করলো। অগত্যা এইসময় আমাকে ICU তে শিফট করা হলো।

এদিকে হঠাৎ করে lung এর crepitation বেড়ে গেল। থেকে থেকে Lung এর alveoli collapse করতে শুরু করেছে। High flow oxygen দেয়ার পরও saturation 90-92% রয়ে যাচ্ছে। বুক ফুলিয়ে শ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছিলো। মনে হচ্ছিলো যে বুকটা চেপে আসছে। মনে এক অজানা ভয় কাজ করতে শুরু করে দিল। বুঝতে পারলাম এরপরে ভেন্টিলেটর ছাড়া উপায় নাই। সে এক ভয়ঙ্কর অনুভূতি। শুরু হোল Prone Ventilation। Prone ventilation ভালই response করল। এতে Oxygen saturation improve করা শুরু করল।

প্রতিদিন 2 ঘন্টা পর পর posture চেঞ্জ করতে থাকলাম । নেগেটিভ fluid ব্যালেন্স করার জন্য IV infusion বন্ধ করে দেয়া হল। সাথে পানি খাওয়া কিছুটা কমিয়ে দিলাম। Hematocrit ঠিক রাখার জন্যে যতোটুকু দরকার ততটুকুই fluid খাচ্ছিলাম। oxygen support সবসময়ই লাগতো।

Oxygen দিয়ে রাখতাম অন্যথায় Hypoxia র জন্ন্যে Hb% বেড়ে যেত। যেটা raised ferritine আর raised Hb% মিলে multi organ damage করে দিতে পারত। ধারণা করা হয় যে COVID-19 এ raised ferritine er toxic oxygen support নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে চলছিল। অন্যথায় Hypoxia র জন্ন্যে Hb% বেড়ে যেত। যেটা raised ferritine আর raised Hb% মিলে multi organ damage করত। ধারণা করা হয় যে, COVID-19 এ raised ferritine er toxic iron level lung damage এর জন্য দায়ি।

Rasied ferritine এর জন্যে Inj Desferoxime দেয়া হল যা এখানে chelating agent হিসেবে কাজ করবে। সাথে Inj Clexane 40mg দেয়া হল যেন Micro-embolism formation prevent হয়। ধারণা করা হয় যে COVID-19 এ suddent death হয় Micro-embolism formation আথবা stroke এর জন্য দায়ী ।

৩-৪ দিন পর থেকে Lung এর কিছুটা উন্নতি হওয়া শুরু করল। এরপর শুরু করা হলো Breathing exercise। Breathing exercise এর মধ্যে Breath hold exercise টা খুব ভালো। সেই সাথে Spirometer দিয়েও exercise শুরু করলাম। এর সাথে Prone ventilation, lateral ventilation ও খুব ভালো কাজে দিল। এতদিন একদম বিছানা থেকে উঠতে পারতাম না । এখন একটু একটু করে হাটাহাটি শুরু করলাম। আস্তে আস্তে oxygen saturation বাড়তে শুরু করল। এর সাথে oxygen এর flow টাও কমিয়ে নিয়ে আসা হলো। এখন মোটমুটি ২ লিটার flow দিয়ে ৯৫-৯৬% saturation maintain করা হয়।

এতক্ষণ যা বললাম গল্পের মতন মনে হলেও পথটা এতোটা সহজ ছিলনা। এক দিকে মানসিক দুঃচিন্তা এবং অন্নদিকে শারিরিক দুর্বলতা সব মিলিয়ে হতবম্বের মত ছিলাম। নিজে ICU Doctor হয়েও patient হোয়ে icu bed এ শুয়ে নিরব দশর্ক এর ভুমিকা ছাড়া কিছুই করার ছিলনা আমার। আল্লাহর অশেষ মেহেরবানি যে আল্লাহ আমাকে রোগ থেকে শেফা দিয়েছেন। সেই সাথে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে হয় আমার Treating Physician দের প্রতি বিশেস করে Consultant Physician General Major General Aziz, Chief Physician Brig Asif, Pulmonologist Brig Aziz, Lt. Col Faiz Emon এবং Intensivist Col Masudul Alam Mazumder , Lt. Col Amin , Lt Col Sadat Bin Siraj, Major Ariful Haque Shaon দের যাদের সময়োপযোগী Treatment, decision, close monitoring এবং যথাসময়ে সকল প্রকার Drug available করা আমার জন্য। এ ছাড়া হয়তো আমার অবস্থার উন্নতি সম্ভব ছিল না। কর্তব্যরত সকল মেডিকেল এসিস্ট্যান্টরাও আপ্রাণ চেস্টা করেছে আমার জন্য। CMH এর Commandant , Deputy Commandant এবং MOIC Corona Ward সবসময় আমার খোজখবর রেখেছেন এবং আমার ব্যাকুল এবং হতাশায় ভেঙ্গে পড়া পরিবারের পাশে এসে দাড়িয়েছেন।

তবে সব চিকিৎসার মূলে হলো মনোবল শক্ত রাখা এবং আল্লাহর উপর অগাধ আস্থা রাখা। ICU তে থেকে মনোবল শক্ত রাখা আসলেই খুব দুরুহ ব্যাপার। তারপরও চেষ্টা করেছি মনোবল শক্ত রাখার। পরিবারের কথা চিন্তা করলেই মনটা ভেঙ্গে আসতো।”
ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

 

E-mail: info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Ltd.

Request Mobile Site

Copyright © 2020 Eibela.Com
Developed by: coder71