মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৭
মঙ্গলবার, ৪ঠা মাঘ ১৪২৩
সর্বশেষ
 
 
আজও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পায়নি গোপালডাঙ্গার ধীরেন্দ্রনাথ রায়
প্রকাশ: ০১:০১ pm ১০-০১-২০১৭ হালনাগাদ: ০১:০১ pm ১০-০১-২০১৭
 
 
 


সাতক্ষীরা : নাম ধীরেন্দ্রনাথ রায়, বয়স প্রায় ৭০। পিতা মৃত সত্যচরণ রায়, গ্রাম-গোপাল ডাঙ্গা, পোস্ট-টিকারামপুর, থানা পাটকেলঘাটা, জেলা-সাতক্ষীরা।

৩ কন্যা ১ পুত্র সন্তানের জনক এ ধীরেন্দ্রনাথ রায়। বয়সের ভারে কানে কম শোনেন এবং চোখেও একটু কম দেখেন তিনি। তিনি ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। অনেক চেষ্টা তদবির করেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাননি তিনি।

সোমবার তালার গোপালডাঙ্গা গ্রামে গেলে সাংবাদিককে দেখে আকুতি করে বলেন, দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি। সেদিনগের সেই কথা মনে পড়লে রক্ত শিউরে ওঠে। তিনি জানান যুদ্ধকালীন সময় মেজর জলিল তাকে একটি মুক্তিযোদ্ধার সনদপত্র দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটা হারিয়ে গেছে। যার কারণে আজ অবহেলা ও অনাদরে বিভিন্ন রোগে ভুগছি। অর্থের অভাবে ঠিক মত ঔষধ কিনে খেতে পারি না।

দেশ স্বাধীন করে ২বছর পর তিনি বাংলাদেশে এসে তৎকালীন এমপি তালার কৃতি সন্তান দৈনিক পত্রদূত পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা স ম আলাউদ্দীন সাহেবের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, উনি আমাদের সেই সময় ৪মাস মুক্তিযোদ্ধার ভাতা দেন।

তিনি আরো বলেন, প্রথমে ৭০টাকা পরে ১০০ থেকে ১৫০ টাকার মত ভাতা নেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ স্বপরিবার হত্যার পর সে ভাতা বন্ধ হয়ে  যায়। শুধু তাই নয়, সে সময় দেশের ক্রান্তিকালে আমাদের উপর চাপ প্রয়োগ হয়।

যার কারণে ২/৩ মাস জেলও খেটেছি। তিনি কোথায় ট্রেনিং করেছেন জানতে চাইলে তিনি জানান ভারতের চব্বিশ পরগুনা জেলার গাইঘাটা থানার জলেশ্বর ক্যাম্পে থাকতেন। সেখান থেকে ভারতের টাকিতে ট্রেনিং দেওয়ার জন্য মুক্তিযোদ্ধার বডার কার্ড দিয়েছিলেন আশাশুনি থানার হড্ডিকুমখালির তৎকালীন গফুর সাহেব। তিনি আরো জানান, ভারতের ২মাস ও বাংলাদেশে ১মাস ট্রেনিং দিয়েছিলেন।

সে সময় বাংলা দেশের সেক্টর কমান্ডার ছিলেন মেজর জলিল ও দেবহাটা ক্যাম্প কমান্ডার ছিলেন রবীন ঘোষ এবং কমান্ডার ছিলেন মোস্তাফা নামে এক ব্যক্তি। মুক্তিযোদ্ধার সনদপত্র পাওয়ার জন্য কোথাও কোন আবেদন করেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, ইন্টারনেটের মাধ্যমে আবেদন করেছি।

এখন যদি যাচাই বাছাইতে থাকতে পারি এবং আমি যাতে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে স্বীকৃতি পাই সে জন্য তিনি জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সহ প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এইবেলাডটকম/এএস

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

News Room: news@eibela.com, info.eibela@gmail.com, Editor: editor@eibela.com

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

Copyright © 2017 Eibela.Com
Developed by: coder71